হোম » শিক্ষা » সরকারি ম্যাটস ও মেডিকেল টেকনোলজির ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত
দুই সপ্তাহ এগোলো মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা

সরকারি ম্যাটস ও মেডিকেল টেকনোলজির ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশে সরকারি মেডিকেল অ্যাসিসট্যান্ট ট্রেনিং কোর্স (ম্যাটস) ও মেডিকেল টেকনোলজি কোর্সের পরীক্ষা শেষ হয়েছে। আজ সকাল ১০ টায় এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এবারের পরীক্ষায় সরকারি ৭টি ম্যাটস ও ৮টি টেকনোলজিতে প্রায় ১৩ হাজার পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এদের মধ্যে ভর্তির সুযোগ পাবে মাত্র ৩ হাজার।

জানা যায় ১৯৭৬ সালে সরকার প্রথম মধ্যমমানের চিকিৎসক তৈরির উদ্দেশ্যে ৩ বছর মেয়াদী এই ডিপ্লোমা কোর্স চালু করেন। এই ডিগ্রী প্রাপ্তদের বলা হয় ডিএমএফ, বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ এদের সার্টিফিকেট প্রদান করে এবং বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) এদের রেজিস্ট্রেশন প্রদান করে। সরকারিভবে এদেরকে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (এসএসিএমও) হিসেব নিয়োগ প্রদান করা হয়। অপরপক্ষে চিকিৎসকদের পাশাপাশি মেডিকেল টেকনোলজিষ্ঠদের ভূমিকাও চিকিৎসা ক্ষেত্রে অপরিসীম। মেডিকেল টেকনোলজিষ্টদের মধ্যে বিভিন্ন বিভাগ রয়েছে যেমন, প্যাথলজি, ডেন্টাল, ফার্মেসী, রেডিওলজি, ও ফিজিওথেরাপী সহ অন্যান্য কোর্স। বত্যমান সরকার ৩ বছরের ডিপ্লোমা কোর্সের মেয়াদ বৃদ্ধি করে ৪ বছরে উন্নীত করেছে এবং ২য় শ্রেনীর মর্যাদা দেয়ার ঘোষনা করে।

জানা গেছে, বাংলাদেশের বিপুল জনগোষ্ঠী বিশেষ করে গ্রাম গঞ্জের সাধারন মানুষের দোর গোড়ায় স্বাস্থ্য সেবার মান পৌছে দেয়ার লক্ষে সরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশা পাশি বেসরকারি ভাবে প্রায় ২৫০টি ম্যাটস ও মেডিকেল টেকনোলজি প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন দিয়েছে সরকার। সরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে তারাও প্রচার-প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে।

তবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলেঅর মধ্যে পড়ালেখার পরিবশে ও ফলাফলের ভিত্তিতে এগিয়ে রয়েছে যে সব প্রতিষ্ঠান তার মধ্যে ট্রমা সেন্টার মেডিকেল ইনস্টিটিউট অন্যতম। প্রতিষ্ঠানটির চারটি শাখা রয়েছে। ট্রমা আই এমটি এন্ড ম্যাটস, শ্যামলী ম্যাটস, টাংগাইল ম্যাটস ও ঘাটাইল ম্যাটস।

শুক্রবার দেশের বিভিন্ন স্থানে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রচারনা চালাতে দেখা যায় ট্রমা সেন্টার মেডিকেল ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তাদের। পরীক্ষা কেন্দ্রের পাশে প্রতিষ্ঠানটি বুথ তৈরি করে ম্যাটস ও টেকনোলজির ভবিষ্যৎ কেরিয়ার গড়ার সুযোগ-সুবিধাগুলি ছাত্র/ছাত্রী ও অবিভাবকদের বুঝানোর চেষ্টা করে।

এ রকম একটি বুথ লক্ষ্য করা যায় সিরাজগঞ্জ পরীক্ষা কেন্দ্রের পাশে। সেখানে প্রতিষ্ঠানের পরিচালক প্রশাসন তানজিনা খান বলেন, ম্যাটস ও টেকনোলজির ছাত্র/ছাত্রীরা এই কোর্স সম্পন্ন করে নানামুখি কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করতে পারে। যেমন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান মন্ত্রনালয়ের অধীনে উপজেলা স্বাস্থ্য উপকেন্দ্র বিভিন্ন উপকেন্দ্রে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রে ,বেসরকারি ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক, বিভিন্ন এনজিওসহ দেশে যেমন চাহিদা রয়েছে তেমনি বিদেশেও রয়েছে ব্যাপক চাহিদা।

খুব শ্রীঘ্রই IHT ও MATS এর ফলাফল প্রকাশিত হবে। সবার আগে ফলাফল পেতে আমাদের সাইটে চোখ রাখুন। @ধন্যবাদ

পোষ্টটি লিখেছেন: Bhinno

Bhinno News এই ব্লগে 79 টি পোষ্ট লিখেছেন .

An exclusive website for Bhinno News

Close [X]