ডাস্টবিনে ময়লা ফেললেই ফ্রি ইন্টারনেট!

ডাস্টবিনে ময়লা ফেললেই ফ্রি ইন্টারনেট!

আবর্জনার বিনিময়ে ওয়াইফাই ইন্টারনেট। এমন বিনিময় প্রথার খবর কেউ কোন দিন শুনেছেন বলে মনে হয় না। কিন্তু ঘটনা সত্যি। পরিবেশের উপর সচেতনতা তৈরি করতে ভারতের দুই তরুণ অভিনব বিনিময় প্রথা চালু করেছেন । তারা একটি ওয়াইফাই ট্র্যাশ বিন তৈরি করেছে। যেখানে ময়লা ফেললেই ওয়াইফাই ব্যবহারের জন্য একটি চিরকুট বেরিয়ে আসবে।

এই দুই তরুণের বাস ভারতের মুম্বাইয়ে। একজনের নাম প্রতীক আগরওয়াল। অন্যজন হলেন রাজ দেশাই। রাজ কম্পিউটার প্রোগ্রামার। এই দুই বন্ধু মিলেই উদ্যোগ শুরু করেছেন।

প্রতীক বলেন, ‘ফিনল্যান্ড, ডেনমার্ক, সিঙ্গাপুর প্রভৃতি দেশে গিয়ে আমরা এটা দেখেছি যে পরিবেশ পরিষ্কার রাখার জন্য মানুষ কতটা সচেতন। তবে এ দেশে তেমনটা নয়। এই ভাবনা থেকেই আমরা ঠিক করি এমন কিছু করব যাতে লোকজন নিজেদের বাড়ি এবং তার আশেপাশের জায়গা পরিষ্কার রাখেন। তাই এই ট্র্যাশ বিন চালু করি।’

যখনই এই ট্র্যাশ বিনে কেউ ময়লা-আবর্জনা ফেলবেন। ঠিক তখনই বিন থেকে একটা চিরকুট বেরিয়ে আসবে। এই চিরকুটে ওয়াইফাইয়ের সাহায্যে ইন্টারনেট ব্যবহার করার প্রয়োজনীয় কোড দেওয়া থাকবে।

তাদের এই উদ্যোগের পেছনের রয়েছে লম্বা একটা গল্প। দুই বন্ধু মিলে একবার এনএইচ সেভেন উইকেন্ডার মিউজিক ফেস্টিভ্যালে গিয়েছিলেন। বহু মানুষের সমাগম হওয়ার সেখানে যেমন ছিল প্রচুর স্টল, তেমনই প্রচুর আবর্জনাও জমা ছিল চারদিকে। তার ওপর ছিল না কোনও নেটওয়ার্ক। ফলে প্রায় ৬ ঘণ্টার চেষ্টায় বাকি বন্ধুদের খোঁজ করতে পেরেছিলেন তারা।

এ নিয়ে প্রতীকের ভাষ্য, ‘সে দিন অসহায় লাগছিল। আজকের যুগে একটা ছোট্ট জায়গায় বন্ধুদের খোঁজ করতে ৬ ঘণ্টা লেগে গিয়েছিল শুধুমাত্র নেটওয়ার্ক না থাকার কারণে।’

এই ঘটনা তাদের নতুন শিক্ষা দিয়েছে। এর পরই এই ডাস্টবিনের উদ্ভাবন। এই উদ্যোগে মোবাইল নেটওয়ার্ক সংস্থা এমটিএসও তাদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে। কথা চলছে গেইল লিমিটেডের সঙ্গেও। একটি ছোট্ট জায়গা থেকে পাওয়া এমন ভাবনাই তো দেশ পাল্টায়। এরাও এমনটাই ভাবেন, ভাবনা পাল্টাও, দেশ পাল্টাবে।

পোষ্টটি লিখেছেন: GM rahap Rahap

GM rahap Rahap এই ব্লগে 23 টি পোষ্ট লিখেছেন .

পোস্টটি ভাল লাগলে লাইক দিন