হোম » অবাক বিশ্ব » ট্রেনেই বসবাস তরুণীর!
ট্রেনেই বসবাস তরুণীর!

ট্রেনেই বসবাস তরুণীর!

জার্মান তরুণী লিওনি মুলারের বাড়ি নাকি ট্রেন! শুনে নিশ্চয়ই অবাক হচ্ছেন, না এটি সত্যিই, অবাক হওয়ার কিছু নেই। সবাই যখন বাড়ি ফেরার জন্য ট্রেন থেকে নেমে নিজ নিজ গন্তব্যে যান সেখানে এই তরুণী ট্রেনে থেকে যান। ভাড়া নিয়ে মালিকের সঙ্গে বিবাদের এক পর্যায়ে গত গ্রীষ্মে নিজের অ্যাপার্টমেন্ট ছেড়ে দেন কলেজ শিক্ষার্থী মুলার।

 

ই-মেইলে ‘দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট’কে মুলার বলেন, ‘আমি তাৎক্ষণিকভাবে সিদ্ধান্ত নিলাম আমি সেখানে আর থাকব না’। এরপর আমি বুঝতে পারলাম আমি আসলে কোথাও থাকতে চাই না।

 

এর পরিবর্তে মুলার এমন একটি টিকেট কেনেন যার মাধ্যমে দেশের যেকোনো ট্রেনে যে কোনো সময়ে বিনামূল্যে চড়তে পারবেন তিনি।

এখন মুলার ট্রেনের বাথরুমেই গোসলের কাজ সারেন। ঘণ্টায় ১৯০ মাইল বেগে ছুটতে থাকা ট্রেনে বসেই পড়াশুনা করেন।

 

অ্যাপার্টমেন্ট ছাড়ার পর থেকে নিজেকে তার অনেক স্বাধীন মনে হচ্ছে এবং তিনি এটা উপভোগ করছেন জানিয়ে বলেন, ‘যখন ট্রেনে থাকি, মনে হয় সত্যিই আমি বাড়িতে আছি’। আমি এখন ভ্রমণ করতে পারি, অনেক বন্ধুর সঙ্গে দেখাও করতে পারি। বিষয়টা এমন যেন সবসময়ই আমি ছুটি কাটাচ্ছি। ২৩ বছর বয়সী এই তরুণীর ব্যতিক্রমী এ সিদ্ধান্ত গণমাধ্যমে আলোড়ন তুলেছে।

 

জার্মানির একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মুলার বলেন, ‘আমি পড়ি, আমি লিখি, আমি জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে থাকি এবং আমি সবসময় চমৎকার সব মানুষজনের সঙ্গে পরিচিত হই। ট্রেনে সবসময়ই কিছু না কিছু করার থাকে’।

 

‘দীর্ঘক্ষণ ভ্রমণ জীবনের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ’ এ ধারণাকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে পিঠে বহনের ছোট্ট একটি ব্যাগে নিজের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস, কাপড়, ট্যাবলেট ও কলেজের কাগজপত্র নিয়ে এভাবেই ট্রেনে বসবাস করছেন এই তরুণী।

 

ট্রেনে বাস করার কারণে আর্থিকভাবেও লাভবান হচ্ছেন তিনি। সব ট্রেনে ভ্রমণের জন্য একটি ‘ফ্ল্যাট-রেট টিকেট’ কিনতে তাকে ৩৮০ ডলার ব্যয় করতে হচ্ছে। যেখানে তার অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া ছিল প্রায় ৪৫০ ডলার।

 

মুলার বেশিরভাগ সময় রাতে ভ্রমণ করেন। যদিও মাঝে মাঝে তিনি আত্মীয় বা বন্ধুদের অ্যাপার্টমেন্টেও ঘুমান। তিনি প্রায়ই তার ছেলেবন্ধু, মা বা নানির বাড়িতেও যান।

 

টিভি চ্যানেলকে মুলার আরো বলেন, ‘স্বাভাবিকভাবে আমরা আমাদের আত্মীয় বা বন্ধুদের সঙ্গে খুব বেশি দেখা করতে পারি না। কিন্তু ট্রেনে বাস করার কারণে আমি সবসময় তাদের সঙ্গে দেখা করতে পারি’।

 

পোষ্টটি লিখেছেন: Md Masum

Md Masum এই ব্লগে 17 টি পোষ্ট লিখেছেন .

-->