তথ্যপ্রযুক্তি তে ভারতকে সহ প্রশিক্ষণ নিতে হলে যা করবেন

এখন প্রায় সব প্রতিষ্ঠানেই অন্যান্য বিভাগের পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ রয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তি জ্ঞানের অভাবে আজকাল অনেকেরই এসব প্রতিষ্ঠানের চাকরি থেকে বঞ্চিত হতে হয়। কারণ, এসব প্রতিষ্ঠানগুলো চায় তাদের প্রতিষ্ঠানে তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ ও অভিজ্ঞ লোকদের নিয়োগ করতে। তাই বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তিতে একজন প্রশিক্ষিত ও দক্ষ লোকের চাহিদা আছে প্রায় সব প্রতিষ্ঠানেই। আর যাঁরা তথ্যপ্রযুক্তির ওপর বিভিন্ন মেয়াদি প্রশিক্ষণ নেন, তাঁদের জন্য চাকরি পাওয়াটা অনেকটাই সহজ হয় বলে জানান সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।
যাঁরা তথ্যপ্রযুক্তিতে নিজের পেশা গড়তে চান, তাঁদের জন্য তথ্যপ্রযুক্তির বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণের সুযোগ করে দিয়েছেন ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক-বাংলাদেশ ইসলামিক সলিডারিটি এডুকেশনাল ওয়াকফ (আইডিবি-বিআইএসইডব্লিউ)। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি তথ্যপ্রযুক্তির বিভিন্ন বিষয়ের ওপর বিভিন্ন মেয়াদি প্রশিক্ষণ দেবে বলে জানিয়েছে। আইডিবি-বিআইএসইডব্লিউ সূত্রে জানা গেছে, দেশের সুবিধাবঞ্চিত মুসলমান মেধাবী যুবসমাজের শিক্ষা ক্ষেত্রে উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে ২০০৩ সাল থেকে এই প্রতিষ্ঠান তথ্যপ্রযুক্তির নানা বিষয়ে বিনা ফিতে বিভিন্ন মেয়াদি প্রফেশনাল ডিপ্লোমা প্রদান করে আসছে। ইতিমধ্যে যাঁরা এসব কোর্স সম্পন্ন করেছেন, এঁদের মধ্যে অধিকাংশই দেশে-বিদেশে তথ্যপ্রযুক্তি পেশায় কাজ করছেন। প্রতিবছর চারটি সেশনে এখানে প্রশিক্ষণার্থী ভর্তি করানো হয়। এখন চলছে রাউন্ড ৩২-এর আবেদন প্রক্রিয়া। আবেদন করতে হবে ৩০ জুনের মধ্যে।
এই ব্যাচে তথ্যপ্রযুক্তির ওপর যেসব বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে, এর মধ্যে আর্কিটেকচারাল অ্যান্ড সিভিল ক্যাড, ডেটাবেইস ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, এন্টারপ্রাইজ সিস্টেমস অ্যানালাইসিস অ্যান্ড ডিজাইন, গ্রাফিকস, অ্যানিমেশন ও ভিডিও এডিটিং, নেটওয়ার্কিং টেকনোলজিস এবং ওয়েব-প্রেজেন্স সলিউশনস অ্যান্ড ইমপ্লিমেনটেশনস এসব বিষয়ে। কোর্সভেদে ১১ থেকে ১৩ মাস মেয়াদি এসব প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।
এসব বিষয়ে প্রশিক্ষণ নিতে হলে আবেদনকারীকে স্নাতক/ফাজিল/মাস্টার্স/কামিল/ডিপ্লোমা (সিভিল/আর্কিটেকচার/কনস্ট্রাকশন/সার্ভে) পাস হতে হবে। তবে এক বছর মেয়াদি মাস্টার্সে অধ্যয়নরত এবং দুই বছর মেয়াদি মাস্টার্স/কামিলে যাঁরা শেষ বর্ষে অধ্যয়নরত আছেন, তাঁরাও আবেদনের সুযোগ পাবেন। আবেদন করতে হলে প্রার্থীকে apply.idb-bisew.info এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন করতে হবে।
এ ছাড়া ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের যেকোনো শাখা থেকে আবেদনপত্র পাওয়া যাবে। এই আবেদনপত্র যথাযথভাবে পূরণ করে নির্ধারিত তারিখের মধ্যে ডাকযোগে পাঠাতে হবে। এখানে প্রতি ব্যাচে ৩০০ জন করে বছরে ১ হজার ২০০ জন ছাত্রছাত্রী ভর্তি হতে পারেন। আইডিবি-বিআইএসইডব্লিউর প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর সৈয়দ রায়হান বাশার বলেন, আবেদনপত্র যাচাই-বাছাইয়ের পর প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষার জন্য ডাকা হবে। এমসিকিউ পদ্ধতিতে ইংরেজি ও গণিত বিষয়ে মোট ১০০ নম্বরে পরীক্ষা হবে। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে প্রশিক্ষণের জন্য মনোনীত করা হবে। এই লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ঢাকা ও চট্টগ্রামে। সপ্তাহে ৬ দিন ৪ ঘণ্টা করে এসব প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে মনোনীত প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোতে। এসব প্রশিক্ষণ দেবে দেশের বড় বড় আইটি প্রতিষ্ঠানের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা। এখানে প্রফেশনাল কোর্সটির আগে দুই মাসের ফান্ডামেন্টাল কোর্স করতে হবে। এতে ভালো করতে পারলে পরে মূল প্রফেশনাল কোর্সগুলোতে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।
রায়হান বাশার বলেন, এই প্রফেশনাল কোর্স করার সময় প্রত্যেক প্রশিক্ষণার্থীকে প্রতি মাসে দুই হাজার টাকা করে ভাতা হিসেবে দেওয়া হবে।
তথ্যপ্রযুক্তির ওপর এসব প্রশিক্ষণ নিয়ে দেশের বিভিন্ন ব্যাংক, বিমা কোম্পানি, বায়িং হাউস, আইটি ফার্ম, এনজিও ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানে কাজ করার অনেক সুযোগ পাওয়া যাবে। সবচেয়ে সুযোগ আছে দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন সফটওয়্যার কোম্পানিগুলোতে। এতে ভালো বেতনের পাশাপাশি অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাও পাওয়া যাবে। এ ছাড়া নিজে ব্যবসা করেও ভালো আয় করা সম্ভব। অর্থাৎ যেখানে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার আছে, সেখানেই তাঁরা কাজের সুযোগ পাবেন বলে জানান রায়হান বাশার।
আরও জানতে: কোর্স-সংক্রান্ত যেকোনো তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে পারেন ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক-ইসলামিক সলিডারিটি এডুকেশনাল ওয়াকফ (আইডিবি-বিআইএসইডব্লিউ)
আইডিবি ভবন (৫ম তলা) শেরেবাংলা নগর, ঢাকা-১২০৭
ফোন: ৯১৮৩০০৬।
Web: (www.idb-bisew.org)

পোষ্টটি লিখেছেন: বিশ্ব বিবেক

বিশ্ব বিবেক এই ব্লগে 3317 টি পোষ্ট লিখেছেন .

Loading...
পোস্টটি ভাল লাগলে লাইক দিন