‘যে গোপন লিঙ্কের মাধ্যমে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী ‘ব্লু হোয়েল’ গেম

পপকর্ন কার্নিভাল’ নামের একটি গোপন লিঙ্কের মাধ্যমে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী ‘ব্লু হোয়েল’ গেম। এমনটাই জানাচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীরা। এমনকি ভারতের কান্ট্রি কোড ব্যবহার করে একটি নম্বর থেকে এই লিঙ্ক ছড়ানো হচ্ছে বলে দাবি করছেন অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারী।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীরা দাবি করেন, +৯১৭৫৭৪৯৯৯০৯৩ নম্বর থেকে ফোন করে প্রথমে টার্গেটকৃত নম্বরটি ট্র্যাক করে এই ফাঁদে ফেলা হয়। এরপর ‘পপকর্ন কার্নিভাল’ নামের একটি লিঙ্ক পাঠানো হয়। এটাই ব্লু হোয়েলের গোপন লিঙ্ক।

ওই নম্বর থেকে কল করে কিংবা লিঙ্ক পাঠিয়ে ফোন হ্যাক করে গেমটি খেলতে বাধ্য করা হয় বলে দাবি করেন তারা। এদিকে এখন পর্যন্ত প্রাণঘাতী এই গেমে আসক্ত হয়ে রাজধানীতে ১৩ বছরের এক কিশোরীর আত্মহত্যার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া সারাদেশে আরও দুজন কিশোরকে এই গেমে আসক্ত অবস্থায় পাওয়া গেছে বলে জানা গেছে।

এই গেমে আসক্ত হয়ে যেহেতু এরই মধ্যে একজন কিশোরী আত্মহত্যা করেছেন এবং আরও দুজন কিশোরকে এই গেমে আসক্ত অবস্থায় পাওয়া গেছে তাই সচেতনতার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে পাঠকদের জন্য তথ্যটি তুলে ধরা হলো।

প্রসঙ্গত,বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পর এবার বাংলাদেশে হানা দিয়েছে মরণঘাতি ব্লু হোয়েল গেম। এর আগে সোশ্যাল মিডিয়া নির্ভর এই গেমের বলি হয়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অসংখ্য মেধাবী তরুণ-তরুণী। রাশিয়ার এক তরুণ মরণঘাতি এই গেমসটি তৈরি করেন। ২০১৬ সালের নভেম্বর পর্যন্ত ইন্টারনেটে ‘মরণ নেশার’ এ গেম খেলে সারা বিশ্বে ১৩০ জন মারা গেছেন বলে জানিয়েছে রাশিয়ার পুলিশ।

সাম্প্রতিক সময়ে এই গেমসটির জনপ্রিয়তা বাড়ছে দক্ষিণ এশিয়ার কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে। এমনকি গত দু’মাস ধরে ভারতজুড়ে চলছে ব্লু হোয়েল আতঙ্ক। কিন্তু অপূর্বা বর্ধন স্বর্ণা নামের ১৩ বছর বয়সী এক কিশোরীর আত্মহত্যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে এই প্রথম এমন ঘটনা শোনা গেলো। এর পর থেকেই অভিভাবকদের মধ্যে এক আতঙ্ক বিরাজ করছে।

ব্লু হোয়েল গেম কী? অনলাইনে একটি কমিউনিটি তৈরি করে চলে এ প্রতিযোগীতা। এতে সর্বমোট ৫০টি ধাপ রয়েছে। আর ধাপগুলো খেলার জন্য ঐ কমিউনিটির অ্যাডমিন বা পরিচালক খেলতে ইচ্ছুক ব্যক্তিকে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ দিবে। আর প্রতিযোগী সে চ্যালেঞ্জ পূরণ করে তার ছবি আপলোড করবে।

শুরুতে মোটামুটি সহজ এবং কিছুটা চ্যালেঞ্জিং কাজ দেয়া হয়। যেমন: মধ্যরাতে ভূতের সিনেমা দেখা। খুব সকালে ছাদের কিনারা দিয়ে হাঁটা এবং ব্লেড দিয়ে হাতে তিমির ছবি আঁকা। তবে ধাপ বাড়ার সাথে সাথে কঠিন ও মারাত্মক সব চ্যালেঞ্জ দেয় পরিচালক। যেগুলো অত্যন্ত ভয়াবহ এবং এ খেলার সর্বশেষ ধাপ হলো আত্মহত্যা করা। অর্থাত্ গেম শেষ করতে হলে প্রতিযোগীকে অাত্মহত্যা করতে হবে।

কোথায় জন্ম: এই খেলার জন্ম রাশিয়ায়। জন্মদাতা ২২ বছরের তরুণ ফিলিপ বুদেকিন। ২০১৩ সালে রাশিয়ায় প্রথম সূত্রপাত। ২০১৫ সালে প্রথম আত্মহত্যার খবর পাওয়া যায়।

তবে এহেন গর্হিত কাজের জন্য নিজেকে অপরাধী না বলে বরং সমাজ সংস্কারক বলে নিজেকে অভিহীত করে বুদেকিন। সে জানায়, এই চ্যালেঞ্জের যারা শিকার তারা এ সমাজে বেঁচে থাকার যোগ্য নয়। এ গেম নিয়ে রীতিমত অবাক রাশিয়া পুলিশ। তদন্তের পর তারা জানায় অন্তত ১৬ জন কিশোরী এ গেমের কারণে আত্মহত্যা করেছে। এমনকি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রায় ১৩০ জনের আত্মহত্যার জন্য এ গেম দায়ী।

গেম কিভাবে তরুণ-তরুণীদের আত্মঘাতী করছে সে বিষয়ে চিন্তিত মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা। বিশেষ করে ব্রিটেন-আমেরিকায় এ গেম জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। যার ফলে সে দেশগুলো তাদের স্কুল-কলেজ সমুহে এ গেমের বিরুদ্ধে ক্যাম্পেইন পরিচালনা করছে। তবে এ গেমের মূল অ্যাডমিন বুদেকিন আটক থাকলেও থেমে নেই তাদের কার্যক্রম। যার ফলে এ গেমের প্রভাব বিরাজমান। সম্প্রতি ভারতে এ গেমের ফলে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।

কেনো যুবক-যুবতীরা আকৃষ্ট হচ্ছে: শুরুতে তুলনামূলক সহজ এবং সাহস আছে কি না এমন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়ায় তা যুবক-যুবতীদের কাছে আকৃষ্ট হয়। তবে একবার এ খেলায় ঢুকে পড়লে তা থেকে বের হয়ে আসা প্রায় অসম্ভব।

খেলার মাঝপথে বাদ দিতে চাইলে প্রতিযোগীকে ব্লাকমেইল করা হয়। এমনকি তার আপনজনদের ক্ষতি করার হুমকিও দেয়া হয়। আর একবার মোবাইলে এই অ্যাপটি ব্যবহারের পর তা আর ডিলিট করা যায় না।

এদিকে এই গেম একজন কীভাবে আসক্ত হয়ে পড়েন সে বিষয়টি জানাতে গিয়ে মারণ ফাঁদ থেকে বেঁচে যাওয়া ভারতের আলেকজান্ডার নামের এক তরুণ বলেন, এটা কোনও অ্যাপ নয়। নয় কোনও গেমও। এটা জাস্ট একটা লিঙ্ক। আর সেটা চালান এক জন অ্যাডমিন। ওই গেম খেলতে যিনিই ঢোকেন, তাকে কয়েকটি টাস্ক দেন অ্যাডমিন। প্রত্যেক দিন সেই টাস্কগুলো শেষ করতে হয়। ওই গেম খেলতে ঢোকার পর কয়েকটা দিন কাটে মোটামুটি স্বাভাবিক ভাবেই। তখন অ্যাডমিন সকলের ব্যক্তিগত পরিচিতি ও ফটোগ্রাফ সংগ্রহ করতে শুরু করেন। তাদের সঙ্গে ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় মেতে ওঠেন অ্যাডমিন।

তিনি আরও জানান, এরপর থেকে অ্যাডমিন বিভিন্ন নির্দেশনা দিতে শুরু করেন। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী খেলোয়াড়কে কবরস্থানে ঘুরে আসা থেকে শুরু করে নিজের হাত কাঁটতে হয়। ভয়ংকর সিনেমা দেখা, নিজেকে ক্ষত-বিক্ষত করতে করতে এক পর্যায়ে গিয়ে তাকে আত্মহত্যা করতে হয়।

এই গেমসের প্রভাবে একের পর এক মৃত্যুর ঘটনা ঘটায় গেমটি বন্ধ করতে কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে ভারত সরকার। গুগল, ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম, মাইক্রোসফট এবং ইয়াহুর মতো জনপ্রিয় সোশাল সাইটগুলি থেকে ব্লু হোয়েল চ্যালেঞ্জ গেমটির লিঙ্ক মুছে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে ভারতের তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়।

গেমটির এক নির্মাতাকে আটক করেছিল রাশিয়ার পুলিশ। এ ধরনের মরণ গেম তৈরির কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদে ফিলিপ বোডিকিন নামের মনোবিজ্ঞানের ওই শিক্ষার্থী বলেন, যারা মারা যেতে চায় তাদের আত্মহত্যার পথকে সহজ করে দিতেই তৈরি করা হয়েছে এ গেম।

গেমটির বিভিন্ন স্টেজ দেখতে গিয়ে দেখা যায়, ৪৯তম পর্বে গেইমারকে নির্দেশনা দেওয়া হয় সকাল চারটা ২০ মিনিটে ঘুম থেকে উঠতে, হরর ভিডিও দেখতে, অ্যাডমিনের পাঠানো গান শুনতে ও প্রতিদিন নিজের শরীরে একটা ক্ষত করতে। ৫০তম পর্বের নির্দেশনায় বলা হয়, উঁচু ভবনের ছাঁদ থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করতে।

অভিভাবকদের বাড়তি নজরদারির পাশাপাশি ইন্টারনেট গেইটওয়ে থেকে গেমটির লিঙ্ক মুছে ফেলার মাধ্যমে কিশোর-কিশোরীদের এ মৃত্যু ফাঁদ থেকে রক্ষা করা সম্ভব বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

দেশের কিশোর-কিশোরীদের রক্ষা করতে বাংলাদেশ সরকারকেও ভারত সরকারের মতো পদক্ষেপই নিতে হবে বলে মনে করেন তথ্য প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ রেজা সেলিম। তিনি বলেন, সরকারকে প্রথমে এই গেমসের ওয়েব লিঙ্কটি বন্ধ করে দিতে হবে। অভিভাবকদের সচেতনতায় সরকারকে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। অন্যদিকে অভিভাবকদের উচিত হবে তার সন্তান প্রযুক্তি কিভাবে ব্যবহার করছে সেদিকে লক্ষ্য রাখা। সে যাতে কোনোভাবেই এ ধরনের খারাপ কিছুতে যুক্ত হতে না পারে সেজন্য প্রযুক্তি সম্পর্কে সচেতনতা জরুরি। গেমটি ইন্টারনেট থেকে মুছে ফেলতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে উদ্যোগ নিতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের অধ্যাপক তাজুল ইসলাম বলেন, এই গেমটি যারা তৈরি করেছেন তারা নিজেরই মানসিকভাবে অসুস্থ। তারা বেঁছে বেঁছে মানসিকভাবে অসুস্থ কিংবা ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের টার্গেট করার মাধ্যমেই নিজেদের উদ্দেশ্য হাসিল করেন।

তিনি বলেন, কোনো ব্যক্তি যদি হিপনোটাইস হতে না চায় তবে তাকে হিপনোটাইস করা যায় না। সুতরাং যে এই গেম দ্বারা প্রভাবিত হতে চায় বা যার জীবনের প্রতি ভালোবাসা কম সেই এ গেমের মাধ্যমে আত্মহত্যার দিকে ধাবিত হবে।

এ গেমের মাধ্যমে সন্তানকে মৃত্যুর পথ থেকে রক্ষা করতে হলে অভিভাবকদের নজরদারি আরও বাড়াতে হবে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, সকল গেমের মধ্যেই দুটি দিক থাকে। একটি হচ্ছে অ্যাগ্রেসিভ ও অন্যটি অ্যাডিকশন। শিশুদের এসব বিজ্ঞান বর্হিভূত বিনোদনের দিকে ধাবিত হতে না দিয়ে তাদের সুস্থ ধারারা বিনোদন মাধ্যম দিতে হবে। আর কেউ যদি এই গেমে আসক্ত হয়ে পড়ে তবে তার আচরণে আগে থেকেই কিছু আঁচ করা সম্ভব হবে। এক দিনেই কোনো মানুষ আত্মহত্যাকে বেঁছে নিতে পারে না। তাই শিশুর আচরণে কোনো ধরনের পরিবর্তন লক্ষ্য করলে সঙ্গে সঙ্গে তার প্রতি নজরদারি বাড়িয়ে তাকে বিপথগামী হওয়ার পথ থেকে রক্ষা করতে হবে।

পোষ্টটি লিখেছেন: Polash Chowdhury

Polash Chowdhury এই ব্লগে 96 টি পোষ্ট লিখেছেন .

Loading...
পোস্টটি ভাল লাগলে লাইক দিন