বেকার যুবকদের মগজ ধোলাইয়ে সুন্দরী নারী

Loading...

ব্যাতিক্রমধর্মী নয় বরং অহরহ ঘটছে এমন কিছু ঘটনা আপনাদের সামনে এখন উপস্থাপন করছি। আশা করছি সবাই সচেতন থাকবেন।
12205080_849716581812917_2093188094_n
প্রতারণার কাজে সুন্দরী নারীদের উপস্থিতি ক্রমাগতভাবে বেড়েই চলেছে, টার্গেট একটাই ফাদে ফেলে সব কিছুই হাতিয়ে নেওয়া, মতিঝিল বানিজ্যিক এলাকায় অফিস ভাড়া নিয়ে একটি প্রতারক চক্র অভিনব পদ্ধতিতে দীর্ঘ দিন ধরে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে টাকা আত্বসাত করে আসছে,এদের মুল টার্গেট শিক্ষিত বেকার সমাজ।

প্রথমে বিভিন্ন গার্মেন্ট টেক্সটাইল কোম্পানির নাম করে লোভনীয় অফারে পত্রিকায় দেয়া হতো চাকরির বিজ্ঞাপন। চাকরি প্রার্থীরা অফিসে এলে সুন্দরী নারী দিয়ে তাদের দেওয়া হতো অভ্যর্থনা.

images (8)অভ্যর্থনার পরেই এই সুন্দরীরা তাদের মগজ ধোলাই শুরু করে। চাকরি হওয়া সময়ের ব্যাপার এই প্রলোভন দেখিয়ে 15 দিনের ট্রেনিং বাবদ পদ অনুযায়ী প্রার্থীদের কাছ থেকে নেওয়া হতো তিন থেকে ষাট হাজার টাকা।

টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পর কয়েকদিন তাদের ট্রেনিং ও করাতো। এরপর সুযোগ বুঝে গলাধাক্কা দিয়ে বের করে দেওয়া হতো। গত কিছুদিন আগে অভিযান চালিয়ে রাব এই চক্রটির মুল হোতা সহ কয়েকজন কে গ্রেফতার করেছে, এই অভিযানে বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগী কেও উদ্ধার করেছেন।

এই অভিযানে উদ্ধার হওয়া ভুক্তভোগী সাগর জানিয়েছেন, এই প্রতিস্ঠানের ব্যক্তিদের সাথে কথা বললে ফিরে যাওয়ার উপায় নেই, আপনার বিশ্বাস করতেই হবে তাদের কথা। আর সুন্দরী নারীরা যেভাবে ভাইয়া ভাইয়া বলে চাকরি সম্পর্কে বলবে তখন আপনার মনে হবে জমি বিক্রি করে হলেও এখানে ট্রেনিং করতে হবে। আরো একজন জানান সুন্দরী নারীদের সুন্দর সুন্দর কথায় তারা ট্রেনিং করতে সম্মত হয়েছেন ,কিন্তু এখন বুজতে পারছেন নিজেরা প্রতারিত হয়েছেন।
এই ব্যাপারে রাব এর উপ অধিনায়ক মেজর মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে আসছে এই প্রতারক চক্রটি, বিভিন্ন গার্মেন্টসে চাকরি দেবে বলে এখানে ট্রেনিং করানো হতো। তবে যারা ট্রেনিং করতে আসতো তাদের এখানেই রাখা হতো ,কিছুদিন নামমাত্র ট্রেনিং করানোর পর তাদের এখান থেকে বের করে দিতো।

আমাদের সাথে সংযুক্ত থাকুন। আমাদের ফেইজবুক-এ লাইক দিয়ে

তিনি আরও বলেন এই চক্রটির ব্যবসার কোন লাইসেন্স ও নিবন্ধন নেই। এই প্রতারক চক্র বিভিন্ন কোম্পানীতে চাকরি দেবার নাম করে পাচ থেকে ষাট হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও তিনি জানান।

বিঃদ্রঃ… এই ঘটনাটি বিশ্লেষণ করে আমরা বলতে পারি, আমাদের সমাজের পরতে পরতে এমন অসংখ্য প্রতারণার ফাদ আছে। তাই কোথায় কিছু করতে গেলে অবশ্যই ভালো কোন ব্যক্তি থেকে পরামর্শ নিবেন। এই চক্র শুধু ঢাকা শহরেই নয় সমগ্র দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। আর নিম্নমানের কোম্পানীতে চাকরি করার আগে অবশ্যই কোম্পানির প্রোফাইল দেখে নিবেন। নিম্নমানের কোম্পানি গুলো সবসময় ভালো ছাত্র দের লোভনীয় অফারের ফাদে ফেলে,কেউ চাকরি ছাড়তে চাইলে তাদেরকে টাকা আত্বসাত মামলায় ঝুলিয়ে দেওয়া হয়।

পোস্টটি ভাল লাগলে শেয়ার করে সবাইকে জানিয়ে দিন।

অন্যরা যা পড়ছেনঃ

পোষ্টটি লিখেছেন: বিশ্ব বিবেক

বিশ্ব বিবেক এই ব্লগে 3297 টি পোষ্ট লিখেছেন .

Loading...
পোস্টটি ভাল লাগলে লাইক দিন